আজ ২২তম তারাবি: আয়াত, অর্থ ও বিষয়বস্তু

0
12

ধর্ম ডেস্ক

বিশ্বজগতের পালনকর্তা, ভূ-মন্ডলের পালনকর্তা ও নভোমন্ডলের পালনকর্তা আল্লাহর-ই প্রশংসা। (সুরা যাসিয়া ৪৫:৩৬)

আজ ২২তম তারাবিতে সুরা হামিম সাজদার ৬ষ্ঠ রুকু (৪৭-৫৪) পর্যন্ত, সুরা শুরার ১ম রুকু থেকে ৫ম রুকু (আয়াত ১-৫৩) পর্যন্ত, সুরা জুখরুফের ১ম রুকু থেকে ৭ম রুকু (আয়াত ১-৮৯) পর্যন্ত, সুরা দুখানের ১ম রুকু থেকে ৩য় রুকু (আয়াত ১-৫৯) পর্যন্ত এবং সুরা জাসিয়ার ১ম রুকু থেকে (আয়াত ১-৩৭) ৪র্থ রুকু পর্যন্ত পঠিত হবে। পারা হিসেবে আজ পড়া হবে ২৫তম পারা।
সুরা হামিম সাজদা : (আয়াত ৪৭-৫৪) :
৬ষ্ঠ রুকুতে (আয়াত ৪৭-৫৪) কেয়ামত সম্পর্কে আলোচনা করা হয়েছে। তারপর মানুষের সুখের ও দুঃখের সময় কী অবস্থা হয় সে বিবরণ দেয়া হয়েছে। দুঃখের সময় মানুষ আল্লাহমুখী হয়, দোয়া কান্নাকাটি করে। আর সুখের সময় আল্লহকে ভুলে যায়।

সুরা শুরা : (আয়াত ১-৫৩) :
১ম রুকুতে (আয়াত ১-৯) আল্লাহ তায়ালা রাসূল (সা.)-কে সম্বোধন করে এরশাদ করছেন, ‘তোমার কাছে এবং তোমার পূর্ববর্তীদের কাছে আল্লাহ তায়ালা ওহি প্রেরণ করেন, যিনি মহাপরাক্রমশালী ও প্রজ্ঞাময়।’ সুতরাং ওহির উৎপত্তিস্থল একটাই, পূর্ববর্তী ও পরবর্তী সবার কাছে এক আল্লাহই ওহি পাঠিয়েছেন। তারপর আল্লাহ তায়ালার কুদরতের কথা বর্ণনা করার পর পুণরায় অহির আলোচনা করা হয়েছে।

২য় রুকুতে (আয়াত ১০-১৯) বলা হয়েছে আকাশ ও পৃথিবীর স্রষ্টা আল্লাহ। তিনি মানুষকে জোড়ায় জোড়ায় সৃষ্টি করেছেন। মানুষের বংশবৃদ্ধিও তার কুদরতে হয়। আল্লাহ মানুষের জীবন যাপনের জন্য যে সংবিধান দিয়েছেন তা আকড়ে ধরা।