আপনার আন্তরিক ভালবাসায় বাঁচাতে চাই শিফা। আসুন আন্তরিক হয়। আপনার সামান্য সহযোগিতায় শিফার জীবন বাঁচায়।

0
27

মোহাইমিনুল ইসলাম: কক্সবাজার জেলা বিশেষ প্রতিনিধি:
তাজরিবা আলম শিফা, পিতা – শাহ্ আলম,
মাতা – সেলিনা সুলতানা, গ্রাম – দিয়ার চর, ৭ নং ওয়ার্ড, ইউনিয়ন – ভেওলা মানিকচর, উপজেলা – চকরিয়া,
জেলা – কক্সবাজার।

শিফা অনুশীলন একাডেমীর বিনয়ী, সদা হাস্যোজ্বল, মেধাবী একজন ছাত্রী, ২০২১ ইং ব্যাচের এসএসসি পরীক্ষার্থী। দু-চোখ ভরা স্বপ্ন নিয়ে পড়ালেখা চালিয়ে যাচ্ছিলো। অদৃষ্টের লিখন, ধীরে ধীরে তার শরীরে দানা বাঁধতে শুরু করে বিরল একটি রোগ। জীবন নামের রেলগাড়ীটির গতি মন্থর হতে থাকে।
শুরু হয় অভিভাবকদের দৌড় ঝাপ।

স্থানীয় ভাবে ডাক্তার দেখানোর পর উনারা কক্সবাজার রেফার করেন। পরীক্ষা নিরীক্ষার পর ধরা পড়ে ম্যানিনজিওমা টিউমার। ডাঃ জনাব কবির আহমেদের তত্বাবধানে কিছুদিন চিকিৎসা চলার পর শারীরিক উন্নতি পরিলক্ষিত না হওয়ায় উনি চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করে দেন। ছোট্ট শিফা’র জীবন আকাশে কালো মেঘ ঘনীভূত হতে থাকে। নেমে আসে অমাবস্যার ঘোর অমানিশা।

গত এপ্রিলের শুরুতে নিয়ে যাওয়া হয় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। ২রা মে অপারেশন করা হয়। সবকিছু ঠিকঠাক চলছিলো। কিন্তু বিধিবাম, বাইউপসি টেস্টে ধরা পড়ে ক্যান্সার নিউরো এক্টোডারমাল টিউমার। ক্যান্সার শনাক্ত হওয়ার পর চট্টগ্রামের পার্কভিউ হসপিটালে ডাঃ জনাব এম, এ, আউয়ালের অধীনে কিছুদিন চিকিৎসা চলে। দিন দিন অবস্থার অবনতি হতে থাকে। ডাক্তারগণ চিকিৎসা করতে অপারগতা প্রকাশ করেন এবং সাফ জানিয়ে দেন এই চিকিৎসা তাদের আয়ত্তের মধ্যে নেই।
শিফা’কে নিয়ে যাওয়া হলো বাড়িতে।

এদিকে শিফা’র বাবা জনাব শাহ্ আলমের সহায় সম্বল সব শেষ। সব মিলিয়ে ধার কর্জ করে ইতোমধ্যে প্রায় সাত লক্ষ টাকা খরচ হয়ে গেছে । দু’চোখে নেয়ে আসে রাজ্যের অন্ধকার। কর্দপশূণ্য বাবা তার মেয়ের জীবন বাঁচাতে ব্যাকুল হয়ে পড়ে।

শারীরিক যন্ত্রণায় অস্থির শিফার চোখ দিয়ে অবিরত অশ্রু ঝরতে থাকে। কিছু জিজ্ঞাসা করলে ভাবলেশহীন ফ্যাল ফ্যাল দৃষ্টিতে শুধুই তাকিয়ে থাকে। মেয়ের অবর্ণনীয় কষ্টে বাবা মা হিতাহিতজ্ঞানশূন্য হয়ে পড়ে। ব্যাকুল হয়ে হন্তদন্ত হয়ে ছুটতে থাকে দুয়ারে দুয়ারে। এরপর উপায়ান্তর না পেয়ে শিফা’র বাবা তার ফেসবুক আইডিতে ছোট্ট একটি হেল্প পোস্ট দেন। আমাদের নজরে আসে বিষয়টি। আমরা স্ব- উদ্যোগে যোগাযোগ করি। তিনি আমাদেরকে ইতোপূর্বে পরিচালিত পারভীন মিশনের অনুরুপ একটি উদ্যোগ গ্রহণের অনুরোধ জানান।

গত ৭ই জুলাই সামান্য কিছু টাকা পয়সা যোগাড় করে শিফা’কে ঢাকায় পাঠানো হয়। সাথে আছেন শিফা’র মা সেলিনা সুলতানা ও একমাত্র ভাই তানজিদ শিফাত। তারা শিফা’কে নিয়ে বাংলাদেশ স্পেশালাইজড হসপিটাল, কল্যাণপুর, ঢাকা’তে যান। সেখানে নতুন করে সবকিছু আবারও পরীক্ষা নিরীক্ষা করানো হয়। সকল রিপোর্ট দেখে ডাক্তারগণ অপারেশন করার চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত দেন।

শারীরিক অবস্থার অত্যাধিক অবনতি ঘটায়, ব্যাথায় অবিরত চিৎকার ও কান্নাকাটি করতে থাকায় অদ্য ১২/৭/২০২১ ইং সন্ধ্যায় শিফা’কে বাংলাদেশ স্পেশালাইজড হসপিটালে ভর্তি করা হয়েছে। L5 WARD BED – 16, চতুর্থ তলা।

টাকা যোগাড় হলে জটিল, ঝুকিপূর্ণ ও অত্যন্ত ব্যয়বহুল এই অপারেশনে তিনজন প্রফেসর অংশগ্রহণ করবেন।
তারা হলেন ;
*অনকোলজিঃ প্রফেসর ডাঃ কামরুজ্জামান চৌধুরী,
প্রধান পরিচালক,
আহসানিয়া মিশন ক্যান্সার হসপিটাল ঢাকা।

*নিউরোসার্জারীঃ প্রফেসর ডাঃ রাজিউল হক,
ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল।

*সার্জারিঃ এ্যাসোসিয়েট প্রফেসর ডাঃ ইমরুল হাসান খান,
ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল।

আসুন সবাই মিলে এই মানবিক যুদ্ধে শামিল হই। যার যতটুকু সামর্থ্য আছে এগিয়ে আসি। শিফা’র উদ্দেশ্যে বলি ;
“শিফা ভয় কিসের? আমরা তো আছি, তুমি আবার ফিরে আসবে আমাদের মাঝে “।
ইন শা আল্লাহ্ শিফা’র জন্য প্রেরিত আপনাদের মানবিক সহযোগিতা প্রাপ্তির বিস্তারিত আপডেট নিয়মিত পোস্টের মাধ্যমে জানিয়ে দিব।

* শিফার বিষয়ে সার্বিক যোগাযোগের প্রয়োজনে,
* জনাব শাহ্ আলম, ( শিফা’র বাবা)
মোবাইল নং- 01860017828
* তানজিদ শিফাত ( শিফা’র ভাই)
মোবাইল নং-01816768074
সার্বক্ষণিক রোগীর সাথে আছে।
* জনাব শফিকুল আলম,
মোবাইল নং – 01925602349
প্রধান শিক্ষক, অনুশীলন একাডেমি।

সহযোগিতায় :
01915707749 (বিকাশ পার্সোনাল, রকেট+নগদ)
Bank Account:
A/C No- 1511101272091001
Brac Bank limited.

আল্লাহ্ আমাদের সবাইকে সহযোগিতা করার তৌফিক দান করুন।