1. smdsagor24@gmail.com : 01815334574 :
  2. habiburrahmansujon@gmail.com : হাবিবুর রহমান সুজন : হাবিবুর সুজন
  3. : স্বাধীন নিউজ আমাদের : স্বাধীন আমাদের
  4. abdishan123@gmail.com : Abdur Rahman Ishan : Abdur Rahman Ishan
  5. arif.kfj333@gmail.com : Ariful islam :
  6. kmazim1995@gmail.com : Azim Hossen Imran Khan : Azim Hossen Khan
  7. mdsujan458@gmail.com : অ্যাডমিন : Habibur Rahman
  8. hmnaiemsurma@gmail.com : hmnaiem7510 :
  9. holysiamsrabon@gmail.com : Holy Siam Srabon :
  10. mintu9250@gmail.com : kishor01875 :
  11. md.khairuzzamantaifur@gmail.com : Khairuzzaman Taifur : Khairuzzaman Taifur
  12. liakatali870a@Gmail.com : Liakat :
  13. liakatali880a@Gmail.com : Liakat ali :
  14. mirajshakil34@gmail.com : Mahadi Miraj : Mahadi Miraj
  15. niazkhan.tazim@gmail.com : Md. Mehedi Hasan Niaz :
  16. mdnazmulhasanofficial7@gmail.com : Md.Nazmul Hasan :
  17. mdnazmulofficial10@gmail.com : Md Nazmul Hasan : Md Nazmul Hasan
  18. mdtowkiruddinanis@gmail.com : Md Towkir Uddin Anis : Md Towkir Uddin Anis
  19. : Meharab Hossin Opy : Meharab Opy
  20. eng.minto@live.com : Mintu Kanti Nath : Mintu Nath
  21. insmonzur5567@gmail.com : Monzur Liton : Monzur Liton
  22. robiulhasanctg5@gmail.com : Rabiul Hasan :
  23. : Rabiul Hasan : Rabiul Hasan
  24. : Rabiul Hasan : Rabiul Hasan
  25. rubelsheke@gmail.com : Rubel Sk : Rubel Sk
  26. smhasan872@gmail.com : S.M. Mehedi Hasan :
  27. sayedtamimhasan@gmail.com : sayedtamimhasan@gmail.com :
  28. sheikhshouravoriginal@gmail.com : Sheikh Shourav : Sheikh Shourav
  29. admin@swadhinnews.com : নিউজ রুম :
  30. h.m.tawhidulislam@gmail.com : tawhidul : tawhidul
  31. wadudhassan503@gmail.com : Wadud hassan :
  32. Wadudtkg@gmail.com : Wadud khn :
করোনায় মলির উদ্যোক্তা হওয়ার গল্প - স্বাধীন নিউজ
মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ০৬:২৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
কার্টনে মিললো নবজাতকের লাশ ধানমন্ডি আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে ইউপি নির্বাচনের মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেন আমিনুল ইসলাম সোহাগ কুষ্টিয়ায় যুবলীগ নেতার ডিজিটাল আইনের মামলায় সাংবাদিক গ্রেফতার সিরাজগঞ্জে দেশীয় অস্ত্রসহ ডাকাত দলের ৬ সদস্য আটক করেছে র‌্যাব-১২ ইউপি নির্বাচনের মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেন মতিউর রহমান ১৭ তে পা রাখল জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়  লালপুরে ৪কেজি গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক  খাগড়াছড়িতে প্রবারণা পূর্ণিমা উপলক্ষে এক টাকার বাজার ব্যাপক সাড়া পড়েছে। বাংলাদেশে সংখ্যালঘু হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষের ওপর সাম্প্রতিক হামলার নিন্দা জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র গোসাইরহাট ধীপুর গ্রামের একটি নির্মাণাধীন ভবনে এক ব্যক্তির অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার।

করোনায় মলির উদ্যোক্তা হওয়ার গল্প

প্রতিবেদক
  • আপডেট : সোমবার, ১১ অক্টোবর, ২০২১
  • ২৪ বার পড়া হয়েছে।

নিজস্ব প্রতিবেদক

লামিয়া আক্তার মলি।

পৃথিবীতে যা কিছু মহান সৃষ্টি চির কল্যাণকর, অর্ধেক তার করিয়াছে নারী অর্ধেক তার নর’। নারী ও পুরুষকে এভাবেই দেখেছেন জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম। বর্তমানে নারীরা কোনো কাজেই পিছিয়ে নেই। তারা তাদের নিজ যোগ্যতায় এগিয়ে যাচ্ছে প্রতিনিয়ত। ঘরে বাইরে সব পেশায় নিজেদের নিয়োজিত করছে। সৃষ্টি হচ্ছে নতুন নতুন উদ্যোক্তা। অনলাইন ব্যবসায়ের প্রবর্তনের ফলে নারীরা আরও বেশি পরিমাণে সফল উদ্যোক্তায় পরিণত হচ্ছে। তেমনি একজন তরুণীর নাম লামিয়া আক্তার মলি।যিনি ইডেন মহিলা কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের অনার্স চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী।মলি স্বপ্ন দেখতে ভালো বাসেন, আর সেই অধরা স্বপ্নের পিছনে ছুটতেও পছন্দ করেন।

লামিয়া আক্তার মলির বাবা হাজী মো.সোহরাব হোসেন।যিনি ব্যবসায়ী আর মা মরহুমা মিসেস আলো বেগম।গ্রামের বাড়ি বরিশাল হলেও মলির বেড়ে ওঠা, ইট-পাথরের শহর ঢাকায়।

করোনাকালে পড়াশুনার মধ্যে যেটুকু সময় অবশিষ্ট থাকে সেটুকু অলসভাবে তিনি কাটাতে চাননি সেই কারণেই অনলাইনে পোশাক শিল্প ব্যবসা চিন্তা করেন। সেই চিন্তার থেকে ফেসবুকে “স্টাইল মার্ট বাই লামিয়া”নামে একটা পেইজ খোলেন এবং সেই পেইজে খুশসা জুত্তি ও লেডিস্ ব্যাগের বিজনেস বিভিন্ন ছবি আপলোড করেন। এর পর একটি দুটি করে অর্ডার আসতে থাকে। এখন তার অনলাইন শপে প্রতিদিনই পণ্যের ক্রেতা বাড়ছে।পাশাপাশি তিনি ভোক্তাদের রুচি ও পছন্দ অনুযায়ী পণ্য এনে থাকেন।যার দাম ও মানের কারণে অনলাইনের পাশাপাশি নিজ এলাকায় তিনি সাধারণের কাছে অল্প সময়ে ভালো অবস্থান করে নিতে সক্ষম হয়েছেন।নিজস্ব পরিমণ্ডলে তিনি এখন একজন সফল উদ্যোক্তা হিসেবে পরিচিত। স্বাধীনভাবে কাজ করে মেধা ও সৃজনশীলতার বিকাশ ঘটানোর চিন্তা থেকে উদ্যোক্তা হয়ে ওঠা।তরুণ এই নারী উদ্যোক্তা সম্প্রতি মুখোমুখি হন প্রতিঘণ্টা ডটকমকের।

আপনার শৈশব-কৈশোর কোথায় কেটেছে জানতে চাই?

লামিয়া আক্তার মলি:আমার এই ছোট্ট জীবনে বেড়ে ওঠার গল্পের কোন বিশেষ স্মৃতি বা মুহূর্তেও নেই ২০০৩ থেকে ২০১০ পর্যন্ত প্রথম শ্রেণী থেকে সপ্তম শ্রেণী পর্যন্ত কাটানো আমার আম্মুর সাথে সব মুহূর্তগুলো ছিল বিশেষ আম্মু চলে যাবার পর থেকে বিশেষ কিছু নেই।

আজকে আপনি একজন নারী উদ্যোক্তা। এর শুরুর গল্পটা শুনতে চাই?

লামিয়া আক্তার মলি:২০২০ সালের উই নামে একটা গ্রুপে যুক্ত হয়ে ছিলাম সেখানে দেখেছিলাম ঘরে বসে লকডাউনে অনেক উদ্যোক্তা তৈরি হয়েছে সেখান থেকে আমার ইচ্ছা জাগে তখন আমি আমার কাজিন (সাদিয়া) আপুকে বলি তখন আপু আমার বিজনেস শুরু করার জন্য সহায়তা করে থাকে।

একজন নারীর উদ্যোক্তা হতে হলে,কোন দিকগুলো প্রথমে মাথায় রাখতে হবে বলেমআপনি মনে করেন?

লামিয়া আক্তার মলি:আমি মনে করি একজন সফল উদ্যোক্তা হতে হলে প্রথমে তাকে আদর্শ ও নীতি বান ব্যক্তি হতে হবে তাছাড়া তার মধ্যে অধ্যাবসায় ও আত্মবিশ্বাস থাকা খুবই জরুরী তাকে সুযোগের সন্ধান করতে হবে তাকে পরিশ্রমই হতে হবে তার লক্ষ্য নির্দিষ্ট থাকতে হবে ঝুঁকি গ্রহণের সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষমতা তার মধ্যে অনিবার্য।

বর্তমানে অনলাইনে ব্যবসার জোয়ার চলছে, ফেসবুক খুললেন দেখা যায়।নানান ধরনের বিজনেস পেইজ।অনলাইন বিজনেস করতে হলে কোনদিকে বেশি নজর রাখতে হবে?

লামিয়া আক্তার মলি:অনলাইন বিজনেস সুষ্ঠু পরিকল্পনার মাধ্যমে শুরু করা উচিত আমি মনে করি পরিপূর্ণ বিজনেস প্ল্যান করা বিজনেসের জন্য পারফেক্ট পেইজ নাম পছন্দ করা,ওয়েবসাইট তৈরি করা,সোশ্যাল মিডিয়াতে একটিভ থাকা, সোশ্যাল মিডিয়াতে যোগাযোগ বৃদ্ধি করা, ডিজিটাল প্লাটফর্ম সম্পর্কিত জ্ঞান রাখা।

অনলাইন বিজনেস পজিটিভ দিকগুলো কী?

লামিয়া আক্তার মলি:অনেক বড় সুযোগ অনলাইন বিজনেস এ আমি মনে করি বিজনেস শুরু করার সময় আমাদের নির্দিষ্ট জায়গায় সে অনুযায়ী দোকান তার ভাড়া ইত্যাদি অনেক কিছু ভাবতে হয় অনলাইনে বিজনেস এর সবচেয়ে বড় পজিটিভ দিক হচ্ছে পরিপূর্ণ একটা প্রফেশনাল পেজ তৈরি করে পর্যাপ্ত প্রোডাক্ট স্টক করে ঘরে বসে বিজনেস খুব সহজে করা যায়।

অনলাইন বিজনেসের নেগেটিভ দিকগুলো অথবা পজেটিভ-এর উল্টো দিকগুলো কী?

লামিয়া আক্তার মলি:অনলাইন বিজনেস এর পজিটিভ দিক এর উল্টো দিক যদি নেগেটিভ দিক গুলো বলি তাহলে বলবো বর্তমান সময়ে অনলাইন বিজনেস এর ফেইক বিজনেস অনেক চালু হয়েছে যার জন্য কাস্টমারে বিশ্বাস করা কঠিন হয়ে যাচ্ছে কাস্টমারের বিশ্বাস বজায় রেখে আমরা যখন কাজ কন্টিনিউ করি তখন অনেক সময় কাস্টমারের দিক থেকেও আমরা সমস্যার মুখোমুখি হই পণ্য অর্ডার করে ঢাকা ও ঢাকার বাইরে পণ্য পাঠানোর পর প্রোডাক্ট রিসিভ না করে অর্ডার ক্যান্সেল করে দেয় এটা একটা সবচেয়ে বড় সমস্যা। কাস্টমাররা না বলে কিছু না জেনেই রিসিভ না করে প্রোডাক্ট ক্যানসেল করে দেয়। আরও অনেক সমস্যা পজিটিভ এর উল্টো দিক রয়েছে যেগুলো আমাদের এড়িয়ে চলা উচিত সতর্ক হওয়া উচিত অনলাইন প্লাটফর্ম এর সবচেয়ে বড় সমস্যা হচ্ছে কাস্টমাররা বিশ্বাস করতে চায় না যে প্রোডাক্ট এর নাম পিকচারের সাথে সরাসরি থাকবে কিনা। তাদের এই বিশ্বাস জন্য আমরা তাদেরকে যে প্রোডাক্ট পাঠায় তারা অর্ডারটা ক্যান্সেল করে দেয় যার জন্য আমাদের অনেক খারাপ লাগে।

অনেক সময় লক্ষ্য করা যায়,অনলাইন পণ্যের দাম বেশি এবং ছবিতে এক বাস্তবে অন্যরকম,কারণ কি বলে মনে হয় আপনার?

লামিয়া আক্তার মলি:আমি মনে করি একজন উদ্যোক্তা হিসেবে ছবি কোন এডিটিং না করে পোস্ট করা উচিত অন্যের ছবিতে ব্রাইটনেস বাড়ানো থেকে ছবি তোলার পিছনের ব্যাকগ্রাউন্ড সুন্দর করা উচিত।কাস্টমাররা যে ছবি দেখে পণ্য অর্ডার করে থাকে তারা যেন সেই পণ্য সরাসরি পেয়ে এতটা খুশি হয় যেন তারা এটা বিশ্বাস করে সব ছবি পেজে যে রকম দেখায় সরাসরি তার থেকে বেশি সুন্দর হয়ে থাকে।

বর্তমান প্রেক্ষাপৃটে উদ্যোক্তা হিসেবে নারীদের অবস্থা কেমন,ভবিষ্যতে কে কেমন হবে আপনার ধারণা?

লামিয়া আক্তার মলি:আজ থেকে ৩০ বছর আগে নারীদের অবস্থান যেমন ছিল এখন তা নেই ২০১৮ সালের ড্যাফোডিল ইউনিভার্সিটিতে নারী সম্মেলনে দেখা গেছে যে নারীরা অনেক এগিয়ে গেছে লাস্ট দু-বছরের লকডাউনে ঘরে ঘরে এখন নারী উদ্যোক্তা তৈরি হয়েছে আমি মনে করি নারীদের অবস্থান ৩০ বছর আগে যেরকম নিম্নমানের ছিল এখন ৩০ বছর পরে আর নিম্নমানের নেই একটা ভালো অবস্থানে চলে এসেছে ভবিষ্যৎ আরো একটা ভালো অবস্থানে চলে যাবে ইনশাআল্লাহ।

বিজনেস সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ কি,একজন নতুন উদ্যোক্তার জন্য?

লামিয়া আক্তার মলি:আমার উদ্যোক্তা জীবন বেশি দিনের নয় ছয় মাস শেষ হয়ে সাত মাসে পা দিয়েছে চার মাস যখন আমার উদ্যোক্তা জীবন রানিং রয়েছে তখন আমারেই বিজনেস লাইফে অনেক বড় একটা ধাক্কা আসে যা আমার সামলানোর মত শক্তি ছিলনা কিন্তু উপরে আল্লাহ আছেন তো তিনি আমাকে সহায়তা করেছেন আমি মনে করি অনলাইন অথবা অফলাইন বিজনেসে প্রতিযোগিতা থাকবে কিন্তু প্রতিযোগিতা এবং প্রতিযোগি থাকা ভালো প্রতিদ্বন্দ্বী হওয়া ভালো না কারো ক্ষতি করে কেউ কখনও ভাল হয় না এটা আমি মনেপ্রাণে বিশ্বাস করি আমার বিজনেসে যে বা যারা যেভাবে তারা যেরকম ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করার চেষ্টা করেছে বিভিন্ন ভাবে আমাকে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে আমি তাদেরকে পাল্টা জবাব ক্ষতি করে দেইনি আমি তাদেরকে আমার কাজ দ্বারা আমার নিজেকে প্রমাণ করে দেখিয়েছে যে তোমরা আমাকে ক্ষতি করবে আমি ততই উপড়ে দিকে ওঠার চেষ্টা করব আমি কখনই তাদেরকে পাল্টা জবাব হিসেবে হিংসাত্মক কোন ব্যবহার করিনি আমি আমার কাজকে ইম্প্রুভ করেছি আমি আমার যোগ্যতা প্রমাণ করেছি আমি তাদেরকে বুঝিয়ে দিয়েছি আমি যা আমি তাই করবো আমি পারবো আমি করব আমি করে দেখাবো আমি সৎ নিষ্ঠার পথে চলবো তোমরা যতই আমাকে বাঁধা দাও কোন লাভ হবে না আমি কিন্তু তাদের ক্ষতি করিনি কিন্তু তারা আমার অনেক ক্ষতি করেছে যা আমি কখনও কল্পনাও করিনি তাদের জন্য আমার এই শুভকামনা তাদের যেনো সুবুদ্ধির উদয় হয়।

যারা আমার ক্ষতি করেছে আমার কাজকে নষ্ট করতে চেয়েছে পথের কাটা হয়েছে আমার একটা জিনিসই ভিতর কাজ করেছে যে আমি ইন্সপাইরেশন পাচ্ছে তাদের জন্য তারা আমাকে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিচ্ছে আমি চ্যালেঞ্জগুলো গ্রহণ করেছি চ্যালেঞ্জ এর প্রতিউত্তর হিসেবে আমি আমার কাজে এগিয়ে যাওয়ার শক্তি পেয়েছি আমার কাজকে আরো ইমপ্রুভ করার স্বচ্ছ করার নিজেকে প্রমাণ করার সুন্দর একটা প্লাটফর্ম পেয়েছে এই অনলাইনে আমিতো তাদের সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় যাবনা আমি তাদেরকে বুঝিয়েছি তোমরা আমাকে পিছন থেকে ছুঁড়ে মারলে আমি সামনে থেকে আমার কাছে আর আমার নিজেকে প্রমাণ করব সমগ্র দেশবাসীর কাছে।

নারী হিসেবে ব্যবসা করতে গেলে নানান ধরনের প্রতিবন্ধকতার সম্মুখীন হতে হয়। আপনি পরিবার থেকে কেমন সাপোর্ট পাচ্ছে?

লামিয়া আক্তার মলি:আমি আমার পরিবার থেকে কখনোই সরাসরি কোন কাজ শুরু করার সময় সাপোর্ট পায়নি কিন্তু হ্যাঁ আমি আমার সাপোর্ট আদায় করে নিয়েছি আমার পরিবার থেকে আমি যখন শিক্ষক প্রফেশনের যাই আমার পরিবার থেকে বলা হয়েছিল তোমার এটা প্রয়োজন নেই তুমি তোমার পড়াশোনার মনোযোগ দাও তুমি এগিয়ে যাও পড়াশোনা নিয়ে তখন আমি বলেছিলাম আমি টিচিং প্রফেশনে থাকবো পড়াশোনা করব কারণ আমি মনে করি প্র্যাক্টিস মেকস আ ম্যান অফ পারফেক্ট আমার পরিবার তখন আমাকে শুরুতে না বললেও যখন আমি আমার টিচিং প্রফেশন এর সফলতা পায় তখন আমার পরিবার অনেক ভালভাবে আমাকে সাপোর্ট করে আমি যখন বিজনেস স্টার্ট করি আমার ভিতরে ভয় ছিল ফ্যামিলিকে জানালে তারা আমাকে সাপোর্ট করবে না তাই আমি তাদেরকে না বলি বিজনেস স্টার্ট করি যখন দুই মাস রানিং চলতে থাকে আমার বিজনেস এর আমার ফ্যামিলি যখন দেখছেন না আমি ভালো কাজ করছি ঘরে বসে করছি কোন বাধা প্রতিবন্ধকতা নেই তখন আমার ফ্যামিলি থেকে ফিনান্সিয়াল মেন্টাল সাপোর্ট দেয় কিন্তু হ্যাঁ একটা কথা না বললেই নয় আমার সব কাজের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত আমি যখন কোন কাজ শুরু করি সেখানে থেকে যখন একটা কাজ শেষ করে সেই পর্যন্ত আমার পরিবার থেকে একজন মাত্র ব্যক্তি আমাকে অনায়াসে সাপোর্ট করেছে সে হচ্ছে আমার মেঝো আপু (তানিয়া আক্তার ডলি) তার এই সাপোর্ট তার অবদান কখনো ভুলে যাবার নয়।

নারী উদ্যোক্তা হিসেবে এখন কাজ করছেন,আপনার ভবিষ্যৎ কর্ম পরিকল্পনা কী?

লামিয়া আক্তার মলি:ছোটবেলা থেকে আমার নিজের ভিতর নিজের শেখার থেকে অন্যকে শেখানোর আগ্রহটা ছিল বরাবর ই বেশি শিক্ষাগত বিরাজ করছে নিজের ভিতর তাই স্বপ্ন দেখতাম বরাবরে একজন আদর্শ শিক্ষক হওয়ার এখন আমি হতে চাই আমার বাবার মতো আদর্শবান একজন ব্যক্তির পাশাপাশি সফল উদ্যোক্তা আমার মায়ের মতন পর্দাশীল নারী এবং ছোটবেলার স্বপ্ন ছিল আদর্শ শিক্ষক হব ঠিক সেটা পূরণ করতে চাই আমার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা হচ্ছে বাবার মতো আদর্শবান নীতিবান ব্যবসায়ী হওয়া মায়ের মত পর্দাশীল ধৈর্যশীল আদর্শবান শিক্ষিকা হওয়া এর বাইরে আমার কিছুই চাওয়ার নেই আর ছোট বাচ্চাকে বড় একটা বিজনেসে পরিণত করা।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও খবর

আলোচিত সংবাদ

© All rights reserved © 2021 Swadhin News
Design & Developed By : PIPILIKA BD