ঘুমের চোখে দাঁত ব্রাশ না করে জল পান করা কি স্বাস্থ্যকর?

স্বাধীন নিউজ ডেস্ক!

সকালে ঘুম থেকে উঠেই ঘুম ঘুম চোখে দাঁত ব্রাশ করা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ একটি মৌলিক স্বাস্থ্যবিধি অভ্য়াসগুলির মধ্যে একটি।

দিনে দুবার , একবার ঘুম থেকে ওঠার পর এবং একবার ঘুমোতে যাওয়ার আগে ভালভাবে দাঁত ব্রাশ করার পরামর্শ দেন চিকিত্‍সকরা। সকালে প্রথমে দাঁত ব্রাশ করার আগে কিছু খাওয়া উচিত নয় বলেই মনে করেন অধিকাংশ চিকিত্‍সক।

তবে বয়স্করা প্রায়শই খালি পেটে হালকা গরম জল পান করতে পছন্দ করে। দাঁত ব্রাশ করার আগে পান করার ফলে শরীর থেকে বিষাক্ত পদার্থ দূর করতে, হজম ও হাইড্রেশনে সহায়তা করার ক্ষেত্রে উপকারে লাগে।

তাহলে এটি কী সত্যিই স্বাস্থ্যকর অভ্যাস নাকি দাঁত মাজার আগে জল পান করলে কিছু স্বাস্থ্য উপকারেও লাগে?

বিশেষজ্ঞদের মতে, পর্যাপ্ত জল পান না করার ফলে ডিহাইড্রেশন হতে পারে। তাতে শরীরের সামগ্রিক কার্যকারিতাকে প্রভাবিত করতে পারে। বার্ধক্যের সব লক্ষণ ধীরে ধীরে পরিস্ফুট হতে থাকে। সুস্থ জীবনের জন্য প্রতিদিন ১০ থেকে ১২ গ্লাস জল পান করা আবশ্যক। দাঁত মাজার আগে জল পান করা কী স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী?

বিশেষজ্ঞদের মতে, খালি পেটে জলের স্বাস্থ্য উপকারিতা কী কী, তা এখানে জেনে রাখুন.

– এটি ইমিউন সিস্টেমের উপকার করে। বিশেষ করে যারা ঠান্ডা ও সাধারণ ফ্লুতে বেশি ভোগেন।

– দাঁত ব্রাশ না করে খালি পেটে পান করলে স্বাস্থ্যকর ও উজ্জ্বল ত্বক পেতে সাহায্য করে।

– কোষ্ঠকাঠিন্য , মুখের ঘা ইত্যাদি হজমের সমস্যায় ভোগেন যাঁরা, তাঁদের জন্য খালি পেটে জল পান করা খুবই উপকারী। স্থূলতা মোকাবিলায় সাহায্যও করতে পারে।

– উচ্চ রক্তচাপ ও ডায়াবেটিসের রোগীরা প্রতিদিন সকালে জল পান করলে উপকার পাবেন।

– এই অভ্যাসের কারণে মুখের মধ্যে ব্যাকটেরিয়া জমতে বাধা দেয়। মুখের ভিতের নানান রকম সংক্রমণ হ্রাসের প্রবণতা পায়।

প্রসঙ্গত, শরীর ঠিক রাখতে পর্যাপ্ত পরিমাণ জল খাওয়া যেমন ভীষণ প্রয়োজন তেমনই আবার অতিরিক্ত পরিমাণে জল খেলে শরীরে পটাসিয়ামের ভারসাম্য বেড়ে গিয়ে নানা ধরনের রোগ হওয়ার আশঙ্কা বেড়ে যায়।

তাই জল তেষ্টা না পেলে জল পান করা ভুলেও নয়। বিশেষজ্ঞদের মতে, খেতে খেতে জল খাওয়া শরীরের জন্য ক্ষতিকারক।

এই ওয়েবসাইটের সকল লেখার দায়ভার লেখকের নিজের, স্বাধীন নিউজ কতৃপক্ষ প্রকাশিত লেখার দায়ভার বহন করে না।
এই বিভাগের আরও খবর
- Advertisment -

সর্বাধিক পঠিত

- Advertisment -