দুর্বল হয়ে পড়েছে কি দৃষ্টিশক্তি?

স্বাধীন নিউজ ডেস্ক!

দৃষ্টিশক্তি কম: চোখ আমাদের শরীরের একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ, এটি ছাড়া জীবন কঠিন হয়ে পড়ে, তাই আমাদের এমন কাজ করা উচিত্‍ নয় যা দৃষ্টিশক্তি হ্রাস করে।

খারাপ অভ্যাস যা চোখের দৃষ্টিশক্তি দুর্বল করে: কম দৃষ্টিশক্তির পিছনে জিনগত বা জন্মগত কারণ থাকতে পারে, তবে কখনও কখনও এটি আমাদের নিজস্ব বদ অভ্যাসের কারণেও হয়, যা আমরা ইচ্ছা করলে নিয়ন্ত্রণ করতে পারি।

চোখের দৃষ্টিশক্তি দুর্বল হলে আজীবন চশমা বা কন্টাক্ট লেন্স বহন করতে হতে পারে, তাই সময়মতো সাবধান হওয়া ভালো। আসুন জেনে নেওয়া যাক সেই বদ অভ্যাসগুলো যা চোখের ক্ষতি করতে পারে।

চোখ কেন দুর্বল হয়ে যায়?

১. কম ঘুম

হওয়া অনেক গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে যে একজন সুস্থ প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের দিনে অন্তত ৭ থেকে ৮ ঘন্টা ঘুমানো প্রয়োজন। এটা না করলে শরীরে নানা ধরনের সমস্যা দেখা দিতে পারে, তার মধ্যে অন্যতম হলো দৃষ্টিশক্তি কমে যাওয়া।

২. স্বাস্থ্যকর খাবার গ্রহণ না

করা আমরা প্রায়শই তৈলাক্ত এবং অস্বাস্থ্যকর খাবার খেতে পছন্দ করি কারণ এর স্বাদ আমাদের আকর্ষণ করে, কিন্তু এটি স্বাস্থ্যের জন্য ভালো নয়। আমাদের এমন খাবার ফল এবং শাকসবজি খাওয়া উচিত্‍ যা আমাদের চোখের উপকার করে, যেমন গাজর, কমলা, শুকনো ফল, ডিম, সামুদ্রিক খাবার এবং পালং শাক ইত্যাদি।

৩. মোবাইলের অতিরিক্ত ব্যবহার

বর্তমান যুগে আমরা মোবাইল ফোন ছাড়া আমাদের জীবন কল্পনাও করতে পারি না, কিন্তু এর আসক্তি দীর্ঘ মেয়াদে আমাদের চোখের ক্ষতি করে। স্মার্টফোনে সূক্ষ্ম শব্দ পড়ার কারণে চোখের ওপর চাপ পড়ে, যার কারণে দৃষ্টিশক্তি কমে যেতে পারে। তাই বেশিদিন ব্যবহার করবেন না।

৪. কম জল

আমাদের শরীরের সবচেয়ে সক্রিয় মাংসপেশির নাম জল, যেগুলো কাজ করতে চোখের আর্দ্রতা বজায় রাখতে হয়। আমরা যদি কম জল পান করি, তাহলে এই পেশীগুলির কার্যকলাপ কমে যাবে। যার কারণে চোখ ফুলে যাওয়ার আশঙ্কা থাকবে।

৫. বারবার চোখ ঘষা আমাদের মধ্যে অনেকেই অভ্যাসগতভাবে বারবার চোখ ঘষে বা ঘষে, যদিও আপনি এটি বুঝতে না পারেন তবে এটি চোখের স্বাস্থ্যের জন্য খুব ক্ষতিকারক প্রমাণিত হতে পারে।

এটি করলে চোখের পাতার নিচে অবস্থিত রক্তনালীতে খুব খারাপ প্রভাব পড়ে। তাই চোখে চুলকানি হলে ঘষার পরিবর্তে ঠাণ্ডা জল দিয়ে পরিষ্কার করুন।

বি.দ্র: এখানে দেওয়া তথ্য সাধারণ জ্ঞানের ওপর ভিত্তি করে লেখা- নতুন যে কোনও কিছু ট্রাই করার আগে চিকিত্‍সকের পরামর্শ অবশ্যই নিন।

এই ওয়েবসাইটের সকল লেখার দায়ভার লেখকের নিজের, স্বাধীন নিউজ কতৃপক্ষ প্রকাশিত লেখার দায়ভার বহন করে না।
এই বিভাগের আরও খবর
- Advertisment -

সর্বাধিক পঠিত

- Advertisment -