দোহাই রিদওয়ান হাসান রাকিন কে ফিরিয়ে দিন – কাজী শামীম আহসান(সোহেল)

0
48

 

সুমন মোহাম্মদ ,ঢাকা প্রতিনিধিঃ

রিদওয়ান হাসান রাকিন কে আমি ব্যক্তিগত ভাবে চিনি না। শুনেছি সে বর্তমানে পড়াশোনা করছে মিশরের আল-আযহার বিশ্ববিদ্যালয়ে। দেশের অন্যতম সেরা বিদ্যাপীঠ ঢাকা নটরডেম কলেজের মেধাবী ছাত্র রাকিন ২০১৮ সালে উচ্চমাধ্যমিক শেষ করে মিসরে আল-আযহার বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০১৯ সালে ভর্তি হয়। সূত্র গুলো বলছে সে একজন নম্র, ভদ্র, জ্ঞানপিপাসু ও চরিত্রবান শিক্ষার্থী।

গতমাসের প্রথম বুধবার ৪ আগস্ট ২০২১ তারিখ এমিরেটসের একটি ফ্লাইটে সকাল ৮:৪০ মিনিটে সে ঢাকা বিমানবন্দরে পৌছে রিদওয়ান হাসান রাকিন। তারসাথে একই ফ্লাইটে আসা সহপাঠীদের সহ নিরাপদে স্বদেশে প্রত্যাবর্তিত হয়ে মোবাইল ফোনে পরিবারের কাছে ল্যান্ড করার কথা জানালেও এরপর থেকে তার আর কোন সন্ধান পায়নি তার পরিবার।

পরবর্তীতে তার সহ যাত্রীদের কাছ থেকে জানা যায় যে, বিমানবন্দর থেকেই ইমিগ্রেশন সম্পন্ন করার আগেই সাদা পোশাকে একদল লোক তাকে গাড়িতে করে তুলে নিয়ে যায়।

বিভিন্ন সূত্র নিশ্চিত করছে, বাংলাদেশের বা বহির্বিশ্বের কোনো রাজনীতির সাথে দূরতম সম্পর্কও নেই রিদওয়ান হাসান রাকিন বা তার পরিবারের কারো। সে সোস্যাল মিডিয়াতে কোন এক্টিভিষ্ট নহে।

যে কারনেই তাকে তুলে নিয়ে গিয়ে থাকেন না কেন,
দোহাই রেদওয়ান হাসান রাকিন কে
তার পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দিন।

দাড়ি রাখা, টুপি পরা বা বিদেশের মাটিতে
আরব ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যায়ন করা
কোন অপরাধের আওতায় পরে কি?

দোহাই,
প্রয়োজনে তাকে উদ্বার অভিযান দেখান,
রিমান্ড দিন,
জেলে রাখুন
তারপরও তাকে জীবিত ফেরত দিন।

এধরনের গুম, আটক, নির্যাতন, রিমান্ড, কারাঅন্তরীনকরন বন্ধ করুন। বিশ্বাস করুন আর নাই করুন, এ ধরনের কর্মকাণ্ড অব্যহত থাকলে অদূর ভবিষ্যতে সকল দল ও মতের নির্যাতিত মানুষ ও সাধারন মানুষের বৃহত ঐক্য তৈরী হবে। হাজারো প্রলোভন, ঝুলুম, নির্যাতন, ভয়, গুম, রিমান্ড, জেল দিয়ে তা ঠেকানো যাবে না। বর্তমানের বিশ্বের সবচেয়ে বড় ইসলামী শক্তি, ইউরোপীয় ইউনিয়ন, আমেরিকা সর্বোত্তম সাপোর্ট দিতে তৈরি হয়ে আছে। এভাবে চললে এই দশকেই অনেক বড় বিপ্লবের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ।

কোন প্রকার ভীতি প্রদর্শনের উদ্দেশ্য নিয়ে
কথা গুলো বলছি না!
সুস্থ, স্বাভাবিক বাংলাদেশ চাই।
চরম শত্রুর ও কোন সর্বনাশা কামনা করি না।
তবে যতটুকু তথ্য রয়েছে,
এ ধরনের কর্মে বহিঃ বিশ্বে কেউই খুশি নয়!
ছেলেটিকে জীবিত অবস্থায় দ্রুত ফিরিয়ে দিন।

দেশের ও আপনাদের ভবিষ্যতের স্বার্থে,
এধরনের কর্মকাণ্ড বন্ধে
জরুরী নির্দেশ প্রদান করুন।