advertisement

নারীর প্রতি সহিংসতা বন্ধে জবিতে আইনি সহায়তা বিষয়ক ক্যাম্পেইন

 

তাসদিকুল হাসান, জবি প্রতিনিধি

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের শিক্ষার্থীদের উদ্যোগে আজ (৮ ডিসেম্বর ২০২১) নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধে আইনি সহায়তা বিষয়ক লিগ্যাল এইড ক্যাম্পেইন-২০২১ অনুষ্ঠিত হয়েছে। উক্ত ক্যাম্পেইনে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা অংশগ্রহণ করেন। লিগ্যাল এইড ক্যাম্পেইনের প্রতিপাদ্য বিষয়গুলোর মধ্যে রয়েছে-
১. নারী ও শিশু নির্যাতন: আইনি প্রতিকার-

নারী নির্যাতন বলতে নারীদের উপর দৈহিক, মানসিক, সামাজিক ও অর্থনৈতিক যেকোনো ধরনের নিপীড়ন ও নির্যাতনকে বোঝায়। নারীর যেকোনো অধিকার খর্ব বা হরন করা এবং কোনো নারীর ইচ্ছার বিরুদ্ধে কোনো বিষয় চাপিয়ে দেওয়া বা কোন ব্যাক্তি বা গোষ্ঠীর ইচ্ছানুসারে কাজ করতে বাধ্য করা ও নারী নির্যাতনের অন্তর্ভুক্ত। নারী ও শিশু নির্যাতনমূলক অপরাধ কঠোরভাবে দমনের জন্য সরকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন প্রনয়ন করে। ২০০০ সালে আইনটি প্রনয়নের পর ২০০৩ সালে এটি সংশোধীত হয়।
যদি কোন ব্যাক্তি বহনকারী,ক্ষয়কারী অথবা বিষাক্ত কোন পদার্থ দ্বারা শিশু বা নারীর মৃত্যু ঘটান বা মৃত্যু ঘটানোর চেষ্টা করেন তাহলে উক্ত ব্যক্তির মৃত্যুদণ্ড বা যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডিত হবেন। এর পাশাপাশি সর্বোচ্চ 1 লক্ষ টাকা অর্থদণ্ড প্রদান করবেন। এছাড়াও যদি কেউ দানকারী পদার্থের দ্বারা আহত হন সেক্ষেত্রে ও শাস্তির বিধান রয়েছে।

২. অনলাইনে হয়রানির শিকার হলে যা করনীয়-
সামাজিক মাধ্যম একটি উন্মুক্ত জায়গা। এর ব্যবহার নেই কোনো দিকনির্দেশনা। ফলে যেমন খুশি এর অপব্যবহার হয়েই যাচ্ছে। সামাজিক মাধ্যমে সবচেয়ে বেশি যেটা হয়ে থাকে তা হলো ভুল তথ্য প্রচার, ফটোশপ দ্বারা ভিক্তিহীন ছবি, ভিডিও প্রচার করে জনমনে বিভ্রান্তি সৃষ্টি এবং অন্যকে হেয় প্রতিপন্ন করা। এসব অপপ্রচার থেকে সংঘর্ষের জন্ম নিতে দেখা যায়।
সামাজিক মাধ্যমে হয়রানি কোন নতুন ঘটনা নয় প্রতিদিন কেউনা কেউ হচ্ছেন নানা ধরনের হয়রানির শিকার এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি রয়েছে যৌন হয়রানি, অশ্লীল মন্তব্য এবং ব্যক্তিগত ছবি বিনা অনুমতিতে সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়া। কি করবেন এরকম পরিস্থিতিতে?
এমন পরিস্থিতিতে যেভাবে অভিযোগ করবেন: ভিক্টিমাইজড হলে যত দ্রুত সম্ভব অভিযোগ জানানো উচিত। অভিযোগ করার ক্ষেত্রে আপনার অভিযোগের স্বপক্ষে কিছু প্রমাণাদি প্রয়োজন। যেমন এক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট আলামত স্ক্রীনশট,লিংক, অডিও-ভিডিও ফাইলের ডকুমেন্টস। স্ক্রীনশট সংগ্রহের ক্ষেত্রে খেয়াল রাখতে হবে যেন Address Bar এর URL টি দৃশ্যমান হয়। Hello CT অ্যাপ ইমেইলের মাধ্যমে অভিযোগ জানাতে চাইলে এসব কন্টেক্ট এটাচ করে আপলোড করতে পারবে। অন্যান্য ক্ষেত্রে সরাসরি সফট কপি দেওয়া যেতে পারে। সর্বোপরি আপনি প্রয়োজনে Cyber Crime Unit এর অফিসারদের নিকট থেকে প্রয়োজনীয় পরামর্শ গ্রহণ করতে পারবেন যা আপনাদের আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের সহায়ক হতে পারে।
এছাড়াও সরকারি খরচে আইনগত সহায়তা কিভাবে পাওয়া যায় ? জিডি কোথায় এবং কিভাবে করতে হবে? এসব বিষয় সম্পর্কে ক্যাম্পেইন অনুষ্ঠিত হয়।

ক্যাম্পেইনে অংশগ্রহণকারী আইন বিভাগের শিক্ষার্থী আমিনুল ইসলাম জানান নারী ও শিশু নির্যাতন, নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিনিয়ত বেড়েই চলছে। বর্তমানে অনলাইনে হয়রানির শিকার অহোরহো দেখা যাচ্ছে। এমতাবস্থায় আমাদের নিরাপত্তা থাকার কিছু কৌশল কাজে লাগানো যেতে পারে- অচেনা অপরিচিত কারো ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট একসেপ্ট করা যাবে না, ফেসবুকে নিজের ব্যক্তিগত তথ্য সবার জন্য উন্মুক্ত রাখা যাবে না, প্ররোচিত হয়ে উস্কানিমূলক ছবি ও ভিডিও শেয়ার করা থেকে বিরত থাকতে হবে, সন্দেহজনক কোন লিংকে প্রবেশ করা যাবে না, বিপুল পরিমাণ অর্থ লটারিতে জিতেছেন এমন তথ্যসহকারে পাঠানো ই-মেইল বা মেসেজে এর উত্তর প্রদান হতে বিরত থাকুন এসকল তথ্য অনুসন্ধান ভুয়া বলে প্রমাণিত হয়।

spot_imgspot_imgspot_imgspot_img
এই বিভাগের আরও খবর
- Advertisment -spot_img

সর্বাধিক পঠিত