নারী উদ্যোক্তার সংকট ও সমাধান

0
14

নাসিমা আক্তার নিশা

২০২০ সাল থেকেই পৃথিবী অসুস্থ। অসুস্থতা সেরে ওঠার লক্ষণ নেই। অসুস্থতা যে শুধু শারীরিক তা নয়, মানসিক, আর্থিকও। এই সংখ্যা প্রতিনিয়ত বাড়ছেই। প্রতিদিন কত মানুষ মারা যাচ্ছেন, অসুস্থ হচ্ছেন, আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন, মানসিকভাবেও ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন তা বলে শেষ করা যাবে না। কিন্তু তাও আমরা থমকে যাইনি। চেষ্টা করছি নতুন করে বাঁচার। নতুন কিছু করার চেষ্টা থাকছে প্রতিনিয়ত।

আমাদের বাংলাদেশে অর্ধেক জনসংখ্যা নারী। কিন্তু অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডের সাথে নারীদের অর্ধেকও যুক্ত নন। অনেক নারীই আছেন তারা হয়তো কর্মজীবী। স্বামীর পাশাপাশি নিজেও সামান্য আয় করেন, সংসারে অবদান রাখেন। কিন্তু সেই সংখ্যাটা আহামরি না। তাও চলছিল সবকিছুই। কিন্তু করোনা সবকিছু বদলে দিল।

অনেক নারী আছেন যাদের কর্মস্থলে যাওয়া বন্ধ হয়ে গেল। বেশিরভাগ স্বামীরা চাকুরিচ্যুত হলেন, কারো বেতন বন্ধ হয়ে গেল। এই অবস্থায় সংসারের হাল ধরার জন্য অনলাইনে নিজেদের দক্ষতা নিয়ে নারীরা এগিয়ে এলেন। কেউ ঘরের রান্নার দক্ষতা নিয়ে, কেউ হাতে বানানো গয়নার দক্ষতা নিয়ে, কেউবা আরেক জায়গা থেকে প্রোডাক্ট সোর্সসিং করে নিয়ে আসেন। গত বছরের এপ্রিল থেকে নারী উদ্যোক্তাদের সংখ্যা ক্রমশই বেড়েছে।

আমাদের নারী উদ্যোক্তারা সুনির্ধারিত কিছু সমস্যার মধ্যে থাকেন। যেমন ছোট ছোট ফান্ডিং, পণ্য ডেলিভারি, এসব ক্ষেত্রে সরকারি এবং বেসরকারিভাবে এগিয়ে আসতে হবে।
তবে সবকিছু তো আসলে এতো সহজ না। না তাদের ছিল কোনো প্রাতিষ্ঠানিক জ্ঞান, না ছিল কোনো বিজনেস প্ল্যান। এটা অনেক বড় একটা সমস্যা ছিল বা আছে বলে আমি মনে করি। তবে এর সমাধানও আছে। উদ্যোক্তা হওয়ার জন্য তাকে নতুন করে কলেজ ইউনিভার্সিটিতে ভর্তি হতে হবে না। তবে কিছু স্কিল ডেভেলপমেন্ট কোর্স করা থাকলে সুন্দরভাবেই তার উদ্যোগকে তিনি সামনে নিয়ে যেতে পারেন। আর বেশিরভাগ দক্ষতা তো তিনি সংসার জীবনেই শিখে ফেলেছেন।

এই বছরের কথায় আসি। কোরবানির ঈদে কিন্তু নারী উদ্যোক্তারা কোরবানির পশুকে কেন্দ্র করে তাদের নতুন উদ্যোগ নিয়ে হাজির হয়েছেন। বিষয়টা দেখতে যত নতুন মনে হয়, আসলে কিন্তু নতুন নয়।

গ্রামীণ নারীরা অনেক আগে থেকে পশু নিয়ে কাজ করছেন। কিন্তু কখনো এভাবে সামনে আসেননি। অনলাইনের যুগ হওয়াতে এখন অনেক কিছুই করা সম্ভব হচ্ছে। শুধু সাহসের দরকার ছিল। সেই জায়গায়টাতেই আমাদের অনেক কাজ করার আছে। এসব গ্রামীণ নারী উদ্যোক্তাদেরকে সামনে নিয়ে আসাটাই হচ্ছে মূল ব্যাপার। পাশাপাশি শহরের নারী উদ্যোক্তাদেরও সাহস দেওয়া তো আমাদের নৈতিক দায়িত্বের মধ্যে পড়ে। এখন প্রশ্ন আসতে পারে কীভাবে আমরা তাদেরকে সামনে নিয়ে আসব?

করোনাকালীন সময়ে নিজের সংসারের হাল ধরার জন্য যেভাবে নারী উদ্যোক্তারা এগিয়ে এসেছেন, এই উদ্দীপনাকে ধরে রেখে সামনে আরও সুন্দর কিছু পলিসি বের করতে হবে, যেন উদ্যোক্তাদের উৎসাহ কমে না যায়।
আমাদের নারী উদ্যোক্তারা সুনির্ধারিত কিছু সমস্যার মধ্যে থাকেন। যেমন ছোট ছোট ফান্ডিং, পণ্য ডেলিভারি, এসব ক্ষেত্রে সরকারি এবং বেসরকারিভাবে এগিয়ে আসতে হবে। এই বছর যত নারী উদ্যোক্তা কোরবানির পশু নিয়ে সাফল্যের সাথে কাজ করেছেন, এই সংখ্যা আরও বাড়তে পারতো যদি ঢাকার বাইরে কোরবানির পশু ডেলিভারি নিয়ে আরও সুযোগ পাওয়া যেত। যদি আমরা ঝামেলাবিহীন ভাবে নারী উদ্যোক্তাদের সামান্য কিছু ফান্ডিং এর ব্যবস্থা করে দিতে পারতাম। পাশাপাশি পরিবার থেকে আরেকটু সাপোর্ট পাওয়া যেত।

একটা কথা কিন্তু মানতেই হবে। এই করোনাকালীন সময়ে নিজের সংসারের হাল ধরার জন্য যেভাবে নারী উদ্যোক্তারা এগিয়ে এসেছেন, এই উদ্দীপনাকে ধরে রেখে সামনে আরও সুন্দর কিছু পলিসি বের করতে হবে, যেন উদ্যোক্তাদের উৎসাহ কমে না যায়। তাদেরকে যেন দমে যেতে দেওয়া না হয় সেই অনুরোধ করবো আমি সবাইকে।

যেসব কর্মজীবী নারীরা অফিসের কাজের পাশাপাশি নিজের ছোট উদ্যোগকে এগিয়ে নিয়ে যেতে চান, তাদেরকে এগিয়ে যেতে দেওয়া উচিত। কারণ একজন নারীই পারেন সবদিক গুছিয়ে সুন্দরভাবে নিজের কাজ সম্পাদন করতে। কোনো পলিসির কারণে যেন কর্মজীবী নারী উদ্যোক্তারা বাধার মুখে না পড়েন সেই দিকটা সবারই নজর রাখতে হবে।

নাসিমা আক্তার নিশা ।। প্রেসিডেন্ট, ওমেন অ্যান্ড ই-কমার্স ফোরাম (উই)
nishabd2012@gmail.com