নির্দেশনা না মানলে কঠোর ব্যবস্থা: শিক্ষামন্ত্রী

0
39

শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি

করোনাভাইরাসের ঝুঁকি এড়াতে একেক দিন একেক শ্রেণির শিক্ষার্থীদের শ্রেণিকক্ষে নিয়ে আসার বিষয়ে সরকারের নির্দেশনা না মানা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের তালিকা চেয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। যদি কোনও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এই নির্দেশনা না মানে তাহলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানান তিনি।

সোমবার (১৩ সেপ্টেম্বর) সচিবালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ কথা জানান শিক্ষামন্ত্রী। এ সময় শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. মাহবুব হোসেন এবং কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আমিনুল ইসলাম খানসহ সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত ছিলেন।

প্রাথমিকের পঞ্চম শ্রেণি এবং এসএসসি ও এইচএসসি শিক্ষার্থীদের প্রতিদিন এবং অন্য শ্রেণিগুলো সপ্তাহে একদিন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নিয়ে আসার শর্ত দিয়ে গত রবিবার (১২ সেপ্টেম্বর) থেকে প্রাথমিক, মাধ্যমিক এবং উচ্চ মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো খুলে দেওয়া হয়েছে।

করোনাকালীন স্কুল খোলার বিষয়ে কিছু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নির্দেশনা মানছে না বলে মন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেন সাংবাদিকরা। এ বিষয়ে শিক্ষামন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, ‘যদি কেউ তথ্য দেয় তাহলে আমরা তাদের সঙ্গে কথা বলবো এবং দেখবো কেন সেটি করছেন। সব ধরনের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের জন্য নির্দেশনা কার্যকর হবে। শুধু কোভিড নয়, তার সঙ্গে এখন ডেঙ্গুর মৌসুম। সে কথা চিন্তা করে এই ব্যবস্থা করেছি। সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান প্রধানদের প্রতি আহ্বান— সরকারি নির্দেশনা পালন করে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান চালু রাখবেন। ’

এদিকে, স্বাস্থ্যবিধি মেনে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিচালনার জন্য মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতর নতুন করে নির্দেশনা জারি করেছে। সোমবারের (১৩ সেপ্টেম্বর) নির্দেশনায় জানানো হয়, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান চালু করার জন্য একটি গাইডলাইন, নির্দেশিকা এবং স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং সিস্টেম (এসওপি) জারি করা হয়েছে।

এসব নির্দেশনা অনুযায়ী সকল শিক্ষার্থী, শিক্ষক, কর্মচারীর স্বাস্থ্যঝুঁকি কমিয়ে কোভিড-১৯, ডেঙ্গু প্রতিরোধ এবং পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার মাধ্যমে সার্বিক সুরক্ষা নিশ্চিত করতে হবে। এতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধানসহ মাঠ পর্যায়ের মনিটরিং কাজে সম্পৃক্ত সকল কর্মকর্তাকে সার্বক্ষণিক মনিটরিং করার জন্য নির্দেশনা দেওয়া হয়। মনিটরিং চেকলিস্টের তথ্য নির্ভুলভাবে গুগল ডকস্ এর মাধ্যমে প্রতিদিন বিকাল ৫টার মধ্যে অধিদফতরের তথ্য পাঠানোর কথাও বলা হয় নির্দেশনায়।