নেটমাধ্যমের হেনস্থা নিন্দা গুঞ্জন থেকে বাঁচতে কী করেছেন তাহসান ও মিথিলা?

0
11

ডেস্ক রিপোর্টঃ

নেটমাধ্যমের হেনস্থা নিন্দা গুঞ্জন থেকে বাঁচতে কী করেছেন তাহসান ও মিথিলা?
তাহসান রহমান খানের এই গানের মতো করেই কি বদলে যাচ্ছে তাঁর জীবনের ‘গল্প’?

গত ১৫ মে প্রাক্তন স্ত্রী রাফিয়াত রাশিদ মিথিলার সঙ্গে একটি লাইভ অনুষ্ঠান করার পর নতুন গুঞ্জন অনুরাগীমহলে। শোনা যাচ্ছে, নতুন রসায়ন গড়ে উঠছে দুই প্রাক্তনের মধ্যে। এই রসায়ন নিছক বন্ধুত্বের। পারস্পরিক বোঝাপড়ার।

লাইভে এসে নিজেদের সমীকরণের কথা খোলাখুলি আলোচনা করেছিলেন ওপার বাংলার ২ তারকা। তাঁরা জানিয়েছিলেন, বিবাহবিচ্ছেদ হলেও কোনও রকম তিক্ততা নেই তাঁদের মধ্যে। নেটমাধ্যমে চলতে থাকা হেনস্থা নিয়েও সরব হয়েছিলেন তাঁরা। বিশেষত মিথিলার দিকে ধেয়ে আসা নানা কুমন্তব্য নিয়েও কথা বলেছিলেন গায়ক-অভিনেতা।

২০১৭ সালে ভেঙে যায় তাহসান এবং মিথিলার দীর্ঘ ১১ বছরের দাম্পত্য। পুরনো সম্পর্ক থেকে বেরিয়ে এসে পরিচালক সৃজিত মুখোপাধ্যায়ের সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন মিথিলা। গত জানুয়ারি মাসে আনন্দবাজার ডিজিটালকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তাহসান বলেছিলেন, “আমার এবং মিথিলার বিচ্ছেদের তিন বছর পেরিয়ে গিয়েছে। আমরা কেউই বাইরের মানুষের কথায় আমাদের বন্ধুত্ব নষ্ট করিনি। তাই বোধ হয় আমাদের সম্পর্কটা এতটা সহজ।

সেই অনুষ্ঠানের পর নেটমাধ্যম যেমন তাঁদের প্রশংসায় ভরে যায়, উল্টো দিকে দু’জনের এক ফ্রেমে আসা নতুন করে ট্রোল, মিমের খোরাক জোগায় নেটাগরিকদের একাংশকে। তবে দু’জনের ইনস্টাগ্রামে সীমিত সংখ্যক নেটাগরিকই এখন মন্তব্য করতে পারছেন। অনুগামী তালিকায় না থাকলে মন্তব্য করা যাবে না তাহসানের ছবিতে। মিথিলার ছবিতেও বিষয়টা কিছুটা সে রকম। নেটাগরিকরা আর ইচ্ছা মতো নিজেদের মতামত ব্যক্ত করতে পারছেন না ২ তারকার পোস্টে। নেটমাধ্যমে নেতিবাচক মন্তব্য এড়িয়ে যেতেই এই পদক্ষেপ করেছেন তাঁরা। খবর:আনন্দবাজার পত্রিকা