পাকিস্থানের নতুন আইনে ইসলাম ধর্ম অবমাননা করলেই ন্যূনতম কারাদণ্ড ১০ বছর ও ১০ লাখ টাকা জরিমানা!

স্বাধীন নিউজ ডেস্ক! 

ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের উত্‍পীড়নের নতুন আইন পাশ পাকিস্থানে, এবার ইসলাম ধর্ম অবমাননা করলেই ন্যূনতম কারাদণ্ড ১০ বছর ও ১০ লাখ টাকা জরিমানা

ইসলামাবাদ,২২ জানুয়ারীঃ

মৌলবাদী রাষ্ট্র পাকিস্তান-বাংলাদেশে ধর্মনিন্দার নামে হিন্দুদের আইনের জালে ফাঁসানোর ঘটনা আকছার ঘটে । এবার ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের উত্‍পীড়নের জন্য নতুন বিতর্কিত ব্লাসফেমি আইনের সংশোধন আইন পাশ করেছে পাকিস্তান।

মঙ্গলবার পাকিস্তানের জাতীয় পরিষদে ধ্বনি ভোটে ফৌজদারি আইন (সংশোধনী) আইন ২০২৩ পাশ হয়ে গেছে ।

ওই আইন অনুযায়ী ইসলামের ধর্মীয় প্রতীক অবমাননাকারীদের ন্যূনতম শাস্তি তিন বছর থেকে বাড়িয়ে ১০ বছর এবং ১০ লাখ টাকা জরিমানার বিধান রাখা হয়েছে । এদিকে পাকিস্তানের শীর্ষ মানবাধিকার সংস্থা বিতর্কিত ব্লাসফেমি আইনের সংশোধন নিয়ে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে । তাদের আশঙ্কা, এই আইনের ফলে পাকিস্তানের হিন্দু সহ অনান্য ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের উপর উত্‍পীড়নের মাত্রা আরও বহুগুণ বেড়ে যাবে ।

পাকিস্তানের মানবাধিকার কমিশনের (এইচআরসিপি) চেয়ারপার্সন হিনা জিলানি শুক্রবার একটি বিবৃতি জারি করে বলেছেন যে ব্লাসফেমি আইনে শাস্তি বৃদ্ধির কারনে সংখ্যালঘুদের উপর নিপীড়ন বহু গুণ বাড়াবে । এই আইনে ব্লাসফেমি অপরাধটিকে অ-জামিনযোগ্য করে তোলা হয়েছে, যার ফলে সংবিধানের নবম ধারা অনুযায়ী ব্যক্তিগত স্বাধীনতা রক্ষার যে গ্যারান্টি দেওয়ার কথা বলা হয়েছে তা লঙ্ঘিত হবে।

তিনি আরও বলেন, ‘পাকিস্তানের এই ধরনের আইনের অপব্যবহারের দুর্বল ট্র্যাক রেকর্ড আছে । এরপর এই আইনের সংশোধনীগুলি ধর্মীয় সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে একটি অস্ত্র হিসাবে ব্যবহার করা হতে পারে । যার ফলে তাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা এফআইআর, হয়রানি এবং নৃশংসতা আরও বাড়বে।

উল্লেখ্য,ব্লাসফেমি আইনকে কঠোর করা হলেও হিন্দু সহ ধর্মীয় সংখ্যালঘু পরিবারের কিশোরী ও মেয়েদের অপহরণের পর জোর করে ধর্মান্তরিত করে নিকাহ করানো রোধ করতে কোনো আইনই নেই পাকিস্তানে।

দেশের ধর্মীয় সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের সুরক্ষায় আইন প্রণয়নের কোনো উদ্যোগই দেখা যায় না পাকিস্তানের মৌলবাদী শাসকদের মধ্যে ।।

এই ওয়েবসাইটের সকল লেখার দায়ভার লেখকের নিজের, স্বাধীন নিউজ কতৃপক্ষ প্রকাশিত লেখার দায়ভার বহন করে না।
এই বিভাগের আরও খবর
- Advertisment -

সর্বাধিক পঠিত

- Advertisment -