প্রথম ম্যাচে আর্জেন্টিনা-জার্মানির পথে হাঁটবে কি ব্রাজিলও?

 

 

সর্বশেষ ২০০২ সালে ৫ম বার বিশ্বকাপ জিতে রেকর্ড গড়েছিল ব্রাজিল। এরপর পেরিয়ে গেছে ২০ বছর। কিন্তু হেক্সা জেতা হয়নি ব্রাজিলের। অথচ বরাবরই ফেভারিট হিসেবে বিশ্বমঞ্চে এসেছে সেলেসাওরা। এবারেও কাতার বিশ্বকাপে টপ ফেভারিট ব্রাজিল। ২০ বছরের শিরোপা খরা কাটাতে সব ধরনের প্রস্তুতি নিয়েই এসেছে ব্রাজিল কোচ তিতে।

ব্রাজিলের হেক্সা জয়ের মিশনে প্রথম প্রতিপক্ষ সার্বিয়া। আজ বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ সময় রাত ১টায় লুসাইল স্টেডিয়ামে ম্যাচ দিয়ে পাঁচবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা কাতারে তাদের বিশ্বকাপ যাত্রা শুরু করবে। দলে রয়েছে একঝাঁক তরুণ প্রতিভা। সাথে রয়েছে থিয়াড়ো সিলভা আর দানি আলভেসের মত অভিজ্ঞ ফুটবলারও। যদিও দলের ১৬ জন খেলোয়াড়েরই আগে বিশ্বকাপ খেলার অভিজ্ঞতা নেই। দারুণ প্রতিভাবান এই নতুন প্রজন্মকে নেতৃত্ব দিচ্ছে ভিনিসিয়াস জুনিয়র, রডরিগো, রাফিনহা, এডার মিলিটাও, বুনো গুইমারায়েস, এন্টনির মত তরুণরা। ইউরোপ জুড়ে এলিট ক্লাবগুলোতে খেলে ইতোমধ্যেই যারা প্রতিভার পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে বিশ্বকাপ মঞ্চে এসেছে। আর এই তরুণদের সবার নেতা হয়ে আছেন সুপারস্টার নেইমার।

১৯৩০ উরুগুয়ে বিশ্বকাপ থেকে শুরু করে ২০২২ সালের কাতার বিশ্বকাপ।

ফুটবলের সর্বোচ্চ এই আসরের প্রতিটিতেই অংশ নেয়া একমাত্র দল ব্রাজিল। সাম্প্রতিক দারুণ খেলা দলটি এবার কাতারে পা রেখেছে ফেভারিট হয়েই।

এমন পরিসংখ্যান নিয়ে দোহার লুসাইল স্টেডিয়ামে ২৫ নভেম্বর রাত ১টায় কাতার বিশ্বকাপ মিশন শুরু করছে তিতে বাহিনী। প্রতিপক্ষ বাছাই পর্বে অপরাজিত থেকে কাতারের টিকিট পাওয়া সার্বিয়া।

সৌদি আরবের কাছে আর্জেন্টিনার হার বড় দলগুলোর প্রতি একটা সতর্ক বার্তা। ফেভারিট দলগুলো এখন বাড়তি হিসাব-নিকাশ কষছে। আজ লুসাইল স্টেডিয়াম সার্বিয়ার বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে বিশ্বকাপ মিশন শুরু করবে পাঁচবারের চ্যাম্পিয়ন ব্রাজিল। মঙ্গলবার এ মাঠেই আর্জেন্টিনাকে ২-১ গোলে হারিয়ে ইতিহাস গড়েছে সৌদি আরব। এশিয়ান দলটির তুলনায় সার্বিয়া আরও গোছানো আর শক্তিশালী দল। ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়ে ২১ নম্বরে সার্বিয়া। তবে, বিশ্বকাপে নিজেদের প্রথম ম্যাচকে ঘিরে সতর্ক অবস্থায় থেকেই মাঠে নামবে ব্রাজিল।

তবে হট ফেভারিট ব্রাজিলকে রুখে দিতে রক্ষণাত্মক কৌশল নিয়ে মাঠে নামবে সার্বিয়া। অন্যদিকে, আক্রমণাত্মক ফুটবল খেলার লক্ষ্যে ব্রাজিলের একাদশে দেখা যেতে পারে নেইমার, রিচার্লিসন, রাফিনিয়া ও ভিনিসিয়ুস জুনিয়রকে।

সার্বিয়ার বিপক্ষে ব্রাজিলের ফরোয়ার্ডরা নিজেদের নামের প্রতি সুবিচার করতে পারলে জয় পেতে কষ্ট হবে না সেলেসাদের। এছাড়া দলের নেইমার, ভিনিসিয়ুসরা রয়েছেন দারুণ ছন্দে। তাদের আটকাতে আলাদা পরিকল্পনা করতে হবে সার্বিয়াকে। তাছাড়া ব্রাজিলের মধ্যমাঠও এবার অন্য যেকোন বারের চেয়ে শক্তিশালী। ফলে, সার্বিয়ার বিপক্ষে আক্রমণাত্মক ফুটবল খেলে গোল আদায় করাই হবে নেইমার-ভিনিসিয়ুসদের মূল লক্ষ্য।

বিশ্বকাপের বাইরে একবার প্রীতি ম্যাচে মুখোমুখি হয় এই দুই দল। ২০১৪ সালে অনুষ্ঠিত ওই ম্যাচে ফ্রেডের গোলে জেতে ব্রাজিল। অপরদিকে আর্জেন্টিনার কাছে কোপা আমেরিকার ফাইনালে পরাজিত হওয়ার পর থেকে অপরাজিত ব্রাজিল। দক্ষিণ আমেরিকা অঞ্চলের বাছাইপর্বে সবচেয়ে বেশি পয়েন্ট সেলেসাওদের। টানা ৭ জয় নিয়ে কাতারে পা রেখেছে দলটি। এই ৭ ম্যাচে প্রতিপক্ষের জালে ব্রাজিল বল পাঠিয়েছে মোট ২৬ বার। সবশেষ প্রীতি ম্যাচে তিউনিশিয়াকে ৫-১ গোলে বিধ্বস্ত করে তিতের শিষ্যরা।

অপরদিকে স্বাধীনতা লাভের পর তিনটি আসরে অংশ নিয়েছে সার্বিয়া। কোনোবারই নকআউট পর্বে যেতে পারেনি। তবে এবার বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে ৮ ম্যাচের ৬টিতেই জিতেছে তারা। ড্র করেছে বাকি দুটিতে। পর্তুগালকে পেছনে ফেলে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হওয়া দলটিকে সমীহ না করে উপায় নেই সেলেসাওদের। দুসান তাদিচ, আলেকজান্ডার মিত্রোভিচ, দুসান ভ্লাহোভিচের মতো তারকা রয়েছে সার্বিয়ার।

১৯৯৮ আসরের পর বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্বে কখনো হারেনি ব্রাজিল। এদিকে সার্বিয়া  বিশ্বকাপে শেষ নয় ম্যাচের সাতটিতেই হেরেছে। তাছাড়া পুরোপুরি ফিট না হওয়ায় সার্বিয়ার সর্বকালের সর্বোচ্চ গোলদাতা আলেকসান্দার মিত্রোভিচকে একাদশে নাও দেখা যেতে পারে আজ। তবে সবমিলিয়ে ব্রাজিলের বিপক্ষে সার্বিয়াকে কঠিন পরীক্ষাই দিতে হবে।

spot_imgspot_imgspot_imgspot_img
এই বিভাগের আরও খবর
- Advertisment -

সর্বাধিক পঠিত

- Advertisment -