বড় বদল,করোনা ভাইরাসের প্রাথমিক উপসর্গ দেখা দেয় পায়ে আর কাঁধে

স্বাধীন নিউজ ডেস্ক!

দীর্ঘ সংগ্রাম এবং বহু মানুষের জীবনহানির পর করোনার মতো মারণ ভাইরাসকে মানুষ হারাতে পেরেছে। দীর্ঘ দুই বছর লকডাউনের বন্দী দশা ঘুচে সব আগের মতো সবে হতে শুরু করেছে। কিন্তু আবার খবরের কাগজে করোনার বৃদ্ধির কথা দেখা যাচ্ছে। ফলে অনেকেই আবার ভয় পাচ্ছেন।

আনাচে-কানাচে কান পাতলেই শোনা যাচ্ছে লকডাউন ফিরে আসার গুজব। নতুন করোনা এসেছে নতুন রূপে। যার অনেক কিছুই বিজ্ঞানীদের কাছে অজানা। চিকিত্‍সকরাও বুঝতে পারছেন না বেশ কিছু তথ্য। যেমন বলা হচ্ছে যে এখন করোনার প্রাথমিক উপসর্গ দেখা দিচ্ছে পায়ে আর কাঁধে। করোনা আবার ভয়াল রূপ ধারন করার আগে এই সংক্রান্ত কিছু জরুরি কথা জেনে রাখা ভাল।

কীভাবে কোভিডের উপসর্গ রূপ পরিবর্তন করেছে

কোভিড ১৯ শুরু হওয়ার পর থেকে এই ভাইরাসের বেশ কয়েকটি শাখা দেখা গিয়েছে এবং তারা ধীরে ধীরে নিজেদের রূপ পরিবর্তন করেছে। বেশিরভাগই ছিল হালকা কিছু উপসর্গ। তবে কিছু কিছু ক্ষেত্রে শারীরিক অবস্থার অবনতি মৃত্যুও ডেকে এনেছে। দেখা গিয়েছে যে একেকটি নতুন স্ট্রেন একেকটি সমস্যার সৃষ্টি করেছে।

এর আগে যে অতিমারী দেখা গিয়েছে সেখানে জ্বর, কাশি, গন্ধ এবং স্বাদের অনুভূতি হ্রাস এবং বুকে ব্যথা ছিল কিছু সাধারণ লক্ষণ। বিশেষত ভাইরাসের আলফা এবং ডেল্টা রূপের সঙ্গে এটা ঘটেছে। যাই হোক, কোভিড-এর ওমিক্রনের উত্থানের সঙ্গে সঙ্গে লক্ষণগুলি একটি হালকা মোড় নেয়। দেখা যায় যে গলা ব্যথা, সর্দি, মাথাব্যথা এবং ক্লান্তি আগের বারের চেয়ে বেশি করে দেখা দিচ্ছে।

রিপোর্ট অনুসারে, কোভিডের শীর্ষস্থানীয় উপসর্গটি আবার পরিবর্তিত হয়েছে বলে মনে হচ্ছে, মায়ালজিয়া সবচেয়ে সাধারণ হয়ে উঠেছে।

রিপোর্ট বলছে আপাতত মায়ালজিয়া কোভিডের প্রাথমিক উপসর্গ

এই মুহূর্তে কোভিডের যা যা উপসর্গ দেখা দিচ্ছে তার মধ্যে শীর্ষ স্থানে আছে মায়ালজিয়া। মায়ালজিয়া মূলত পেশির ব্যথা। যখন শরীরে ভাইরাসের আক্রমণ ঘটছে, তখন শরীরের ইমিউন কোষ এক ধরনের প্রদাহজনক অণু নির্গত করছে, যার ফলে এই ব্যথা অনুভূত হচ্ছে।

এই উপসর্গটি ২০২১ সালে সবচেয়ে প্রভাবশালী লক্ষণগুলির মধ্যে একটি ছিল, যখন ওমিক্রন আবির্ভূত হয়েছিল।

দক্ষিণ আফ্রিকার ডাক্তার অ্যাঞ্জেলিক কোয়েটজি সবার প্রথম ভাইরাসের ওমিক্রন রূপটি আবিষ্কার করেছিলেন। তিনি বলেছেন যে যাঁরা মায়ালজিয়ার টিকা নেননি তাঁদের আরও বেশি করে এই ব্যথা অনুভূত হতে পারে। তবে যাঁরা টিকা নিয়েছেন তাঁরাও কিন্তু হালকা হলেও মায়ালজিয়ার ব্যথা অনুভূত করেছেন বলে খবর।

কোভিড মায়ালজিয়া কেমন হয়?

এটি মূলত পেশির ব্যথা যা কাঁধে বা পায়ে হয়। কাঁধে বা পায়ের একটি নির্দিষ্ট জায়গায় এই ব্যথা হতে পারে। নড়াচড়া করলে বা বিশ্রাম নিলেও এই ব্যথা হয়। যাঁরা কোভিডের কারণে অতিরিক্ত ক্লান্তিতে ভুগছেন, তাঁরা আরও বেশি মাত্রায় এই ব্যথা অনুভূত করছেন বলে রিপোর্ট দাবি করেছে। অনেকেই এত তীব্র পরিমাণে এই ব্যথা অনুভব করছেন যে তাঁরা প্রতিদিনের কাজকর্ম করতে পারছেন না।

অন্য কারণেও হতে পারে মায়ালজিয়া

তবে করোনা ছাড়াও অন্যান্য বহু কারণে মায়ালজিয়া দেখা দিতে পারে। যেমন আঘাত, ট্রমা, উত্তেজনা, কিছু ওষুধ এবং অসুস্থতা ইত্যাদি।

এছাড়াও মায়লাজিয়া হতে পারে দীর্ঘস্থায়ী ক্লান্তি, ফাইব্রোমায়ালজিয়া, লাইম, লুপাস, মায়োফেসিয়াল পেইন সিন্ড্রোম বা রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিস থাকলে।

কী করে বোঝা যাবে?

যদি অন্যান্য কারণেও মায়ালজিয়া হয়ে থাকে তাহলে কীভাবে আসল কারণ বোঝা যেতে পারে? কোভিড-জনিত মায়ালজিয়া দুই থেকে তিন দিন থাকে, তবে সেরে উঠতে অনেক বেশ সময় নেয়। কেউ কোভিড দ্বারা সংক্রামিত কি না সেটা জেনে নেওয়ার সেরা উপায় হল কোভিড টেস্ট করিয়ে নেওয়া। তাছাড়া এটাও দেখতে হবে যে মায়ালজিয়া বা পেশির ব্যথা ছাড়াও কোভিডের অন্যান্য কোনও উপসর্গ দেখা দিচ্ছে কি না।

কোভিডের সাধারণ উপসর্গ

গলা ব্যথা, জ্বর, সর্দি, মাথা ব্যথা, ক্রমাগত কাশি এবং ক্লান্তি- এই হল কোভিডের সাধারণ উপসর্গ।

কীভাবে কোভিডের বিস্তার রোধ করা যায়?

যাঁদের শরীর আগে থেকেই খারাপ, যাঁদের শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম এবং যাঁদের বয়স বেশি, তাঁদের জন্য কোভিড অবশ্যই অনেক বেশি ঝুঁকির। সেই জন্য মাস্ক পরা, হাত ধোয়া এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা খুব দরকার।

ভ্যাকসিন বা টিকার গুরুত্ব

বিশ্ব জুড়ে স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ এবং চিকিত্‍সকরা বলছেন এই ভাইরাসকে আটকানোর সহজ উপায় হল ভ্যাকসিন বা টিকা নিয়ে নেওয়া- এই ব্যাপারে গাফিলতি করলে পস্তাতে হবে নিজেকে এবং পরিবারকে।

(Disclaimer: এই প্রতিবেদনটি কেবলমাত্র সাধারণ তথ্যের জন্য, তাই বিস্তারিত জানতে হলে সর্বদা বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।)

এই ওয়েবসাইটের সকল লেখার দায়ভার লেখকের নিজের, স্বাধীন নিউজ কতৃপক্ষ প্রকাশিত লেখার দায়ভার বহন করে না।
এই বিভাগের আরও খবর
- Advertisment -

সর্বাধিক পঠিত

- Advertisment -