রাঙ্গামাটির বাঘাইছড়িতে ছাত্রসেনার মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান।

0
26

-বাঘাইছড়ি প্রতিনিধি।

বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনা কেন্দ্রীয় পরিষদ ঘোষিত প্রতিটি উপজেলায় একযোগে অনতিবিলম্বে স্বাস্থ্যবিধি মেনে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার দাবীতে মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান কর্মসূচী পালন করেছে বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনা বাঘাইছড়ি উপজেলা শাখা।

আজ৩ জুন সকাল ১০ টা থেকে বাঘাইছড়ি উপজেলা পরিষদের সামনে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনা বাঘাইছড়ি উপজেলা শাখার নবনির্বাচিত সভাপতি মুহাম্মদ ওসমান গণি রাকিব।
এসময় বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনা বাঘাইছড়ি উপজেলার সাবেক সভাপতি ও রাঙ্গামাটি জেলা সভাপতি শাহজাদা সৈয়দ মুহাম্মদ আবদুল বারী,বাঘাইছড়ি উপজেলা শাখার সহসভাপতি মুহাম্মদ আরফাতুর রহমান,সহ-সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ মাহমুদুল হাসান কাদেরী প্রমুখ।

স্বাস্থ্যবিধি মেনে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার পাশাপাশি করোনার কারণে শিক্ষার যে ক্ষতি হয়েছে, তা পুষিয়ে নিতে দীর্ঘমেয়াদি ও স্বল্পমেয়াদী সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা গ্রহণ করার দাবি জানান– এ ব্যাপারে বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনা সর্বস্তরের ছাত্র-জনতার পক্ষ থেকে ৫ দফা প্রস্তাবনা ও দাবি উপস্থাপন করছে- তা হলোঃ

১। স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণপূর্বক সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দিতে হবে। মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষার্থীদের শারীরিক দূরত্ব বজায় রেখে নিয়মিত ক্লাস নেয়ার ব্যবস্থা করতে হবে।

২। প্রতিষ্ঠানগুলো খোলার পর অবশ্যই শিক্ষার্থীদের অতিরিক্ত ড্রপআউট, এবং অনুপস্থিতি হ্রাস করতে হবে।

৪। মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক ব্যতীত অন্যান্য শ্রেণিসমূহের শিফট আকারে সপ্তাহে ৩ দিন ক্লাস নিতে হবে।

৩। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার পর পর্যায়ক্রমে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে প্রত্যেক শিক্ষার্থী করোনা ভ্যাকসিন কর্মসূচির আওতায় আনতে হবে।

৪। বোর্ড ও বিশ্ববিদ্যালয়ে স্থগিত পরীক্ষার তারিখ দ্রুত ঘোষণা দিয়ে পরীক্ষা সম্পন্ন করলে শিক্ষার্থীরা উপকৃত হবে। তাই প্রতিষ্ঠান খোলার সাথে-সাথেই দ্রুত পরীক্ষার তারিখ ঘোষণা দিতে হবে।

৫। শিক্ষাবর্ষের মেয়াদ ২/৩ মাস কমিয়ে এনে অতিবাহিত সময় পুষিয়ে নেওয়া যাবে। স্বল্পমেয়াদি এ ‘শিক্ষাবর্ষ সংকোচন পদ্ধতি’ পেনডামিকের কারণে সৃষ্ট শিক্ষার ব্যাপক ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে কোভিড-পরবর্তী বিকল্পগুলোর মধ্যে একটি ভারসাম্যপূর্ণ সেরা বিকল্প হিসাবে পরিগণিত।