সাংবাদিক রোজিনাকে গলা টিপে হত্যার চেষ্টায় তীব্রনিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে উলিপুর প্রেস ক্লাব

0
52

মোঃ মিজানুর রহমান
কুড়িগ্রাম জেলা প্রতিনিধিঃ

সাংবাদিক রোজিনাকে গলা টিপে হত্যার চেষ্টা সাংবাদিকরা রাষ্ট্রের প্রহরী। সাংবাদিক রোজিনার মুক্তি চাই,রোজিনার গলা চেপে ধরা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব জেবুন্নেছাকে গ্রেপ্তার করুন।

জানা যায়,অতিরিক্ত সচিব কাজী জেবুন্নেছার কানাডায় ৩টি বাড়ি,পূর্ব লন্ডনে ১টি এবং ঢাকায় ৪টি বাড়ি,গাজীপুরে ২১ বিঘা জমি আছে।

উলিপুর প্রেস ক্লাব এর পক্ষ থেকে সাংবাদিক রোজিনাকে হত্যা চেষ্টার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি ।

এছাড়া নামে-বেনামে রয়েছে ৮০ কোটি টাকার এফডিআর। তার স্বামী পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের সচিব, স্বামীর বাড়ি নরসিংদী।দুই মেয়ে কানাডায় পড়ে।তার এতো সম্পদের উৎস কোথা থেকে? দুদক কী করে?অতিরিক্ত সচিব জেবুন্নেছা সাংবাদিক রোজিনার গলা চেপে ধরেছে কোন সাহসে? অতিরিক্ত সচিব জেবুন্নেছাকে গ্রেপ্তার করে সম্পদের উৎস বের করুন।

দুর্নীতি আর লুটপাটের কারণে সরকারের অর্জন ম্লান হয়ে যায়।রোজিনা ইসলাম অনুসন্ধানী সাংবাদিকতায় অনন্য।আন্তর্জাতিকভাবে তাঁর স্বীকৃতি আছে। এমন একজন সাংবাদিক পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গেলে তাঁকে ঘণ্টার পর ঘণ্টা আটকে রাখা গলা টিপে হত্যার চেষ্টা অন্যায়, অনভিপ্রেত।

কী কারণে এভাবে আটকে রাখা হয়েছে, অসুস্থ হওয়ার পরও তাঁকে হাসপাতালে না নেওয়ার বিষয়টির সুষ্ঠু তদন্ত হওয়া দরকার।জাতীয় সাংবাদিক সোসাইটির চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা লায়ন এম এ মজিদ ও মহাসচিব নাসির উদ্দীন বুলবুল এক বিববৃতিতে উক্ত ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়ে বলে রোজিনা ইসলামের সাথে হওয়া ঘটনাটি স্বাধীন দেশে প্রজাতন্ত্রের কর্মচারী ও জনগনের মধ্যকার মালিক-কর্মচারীর পার্থক্য,গণমাধ্যমের স্বাধীনতা এবং মুক্ত স্বাধীন পেশাদারিত্বকে প্রশ্নবিদ্ধ করে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন বয়কট দৈনিক প্রথম আলোর সিনিয়র রিপোর্টার ও বাংলাদেশ সেক্রেটারিয়েট রিপোর্টার্স ফোরামের (বিএসআরএফ) সদস্য রোজিনা ইসলাম।

এদিকে রোজিনার ৫ দিনের রিমান্ড চেয়েছে পুলিশ আদালত থেকে কারাগারে প্রেরন করে সাংবাদিক রোজিনা ইসলাম কে । চুরি ও অফিসিয়াল সিক্রেটস আইনের করা মামলায় দৈনিক প্রথম আলোর জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক রোজিনা ইসলামের ৫ দিনের রিমান্ড চেয়েছে পুলিশ।

মঙ্গলবার সকাল ৮টায় তাকে ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট সিএমএম আদালতে হাজির করে শাহবাগ থানার পুলিশ। এ সময় মামলার সুষ্ঠু তদন্তের জন্য তাকে ৫ দিনের রিমান্ডে নিতে আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা।