সারা বাংলার খবর স্বস্তির বৃষ্টিপাত শুরু, কমছে তাপদাহ

0
41

বিশেষ প্রতিনিধি, চট্টগ্রাম ব্যুরো

মে মাসের শুরুতেই দেশের অনেক জেলায় হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টিপাত হচ্ছে। কোথাও কোথাও হচ্ছে গুঁড়ি গুঁড়ি বর্ষণ। সেই সাথে হিমেল দমকা থেকে ঝড়ো হাওয়া, বজ্রবৃষ্টি ও বজ্রপাত হচ্ছে। স্বস্তির বৃষ্টিপাতের ফলে কমছে তাপদাহের তীব্রতা। আজ শনিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় দেশের সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাত হয়েছে উত্তর জনপদের ডিমলায় ৬৫ মিলিমিটার।
এছাড়া চট্টগ্রামে ২৩, নিকলীতে ৪৭, তেঁতুলিয়ায় ২০ মি.মি. সহ রাজশাহী, ময়মনসিংহ, সিলেট, খুলনা, রংপুর, ঢাকা, বরিশাল বিভাগের বিভিন্ন স্থানে অল্পস্বল্প বৃষ্টি বা বজ্রবৃষ্টি হয়েছে। তবে ঢাকা মহানগরীতে বৃষ্টি ঝরেনি।

আজ দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল যশোরে ৩৭.৮ এবং ঢাকায় ৩৬.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। টানা ছয় মাসের অনাবৃষ্টি, খরতাপে পুড়ে খাক চট্টগ্রাম জনপদ স্বস্তির বৃষ্টিপাতে খানিকটা সিক্ত হয়েছে। বজ্রের গর্জন, বিজলির চমকানি, ঘনঘোর মেঘ, হিমেল হাওয়ায় ভর করে গেল সেহেরি রাতে ঝুম বৃষ্টি নামে। তাপপ্রবাহে দুর্বিষহ জনজীবনে সাময়িক হলেও শীতল পরশ বুলিয়ে দেয় প্রত্যাশিত এই বর্ষণ।

গতকাল বাদজুমা মসজিদে মসজিদে দেশজুড়ে তীব্র গরম ও খরা পরিস্থিতি থেকে পরিত্রাণ এবং রহমতের বৃষ্টির জন্য আল্লাহর দরবারে বিশেষ দোয়া ও মোনাজাত করা হয়। এই প্রত্যাশিত বৃষ্টি, ঠাণ্ডা বাতাসে মাহে রমজানে এবং করোনাকালে জনজীবনে অপার স্বস্তি এনে দিয়েছে।

দমকা থেকে ঝড়ো হাওয়া ও বজ্রপাতের সময় চট্টগ্রাম নগরী ও জেলায় অনেক জায়গায় বিদ্যুৎ সরবরাহ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। বজ্রপাতে চট্টগ্রামে বিভিন্ন স্থানে নিহত হয়েছে তিন জন।

আবহাওয়া পরিস্থিতি-
ঢাকা, খুলনা বিভাগসহ বিভিন্ন জেলায় মৃদু তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। তবে বিভিন্ন স্থানে মেঘের আনাগোনা বৃদ্ধি এবং বিক্ষিপ্ত হালকা থেকে মাঝারি ও গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টিপাতের ফলে গরমের তীব্রতা কমতির দিকে। আগামী ৭২ ঘণ্টায় ক্রমেই দেশের বিভিন্ন স্থানে দমকা থেকে ঝড়ো হাওয়ার সঙ্গে বিক্ষিপ্ত বৃষ্টি-বজ্রবৃষ্টির পূর্বাভাস দেয়া হয়েছে। এরফলে তাপমাত্রা হ্রাসের সম্ভাবনা রয়েছে।

আবহাওয়ার পূর্বাভাস-
আগামীকাল রোববার সন্ধ্যা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টার পূর্বাভাসে জানা গেছে, ঢাকা, সিলেট ও চট্টগ্রাম বিভাগসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে অস্থায়ী দমকা থেকে ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি অথবা বজ্রবৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। তাপপ্রবাহ পরিস্থিতি এবং এ সম্পর্কিত পূর্বাভাসে জানা গেছে, ঢাকা, ও খুলনা বিভাগসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের উপর দিয়ে চলমান মৃদু তাপপ্রবাহ কিছু কিছু জায়গায় আরও কমতে পারে। সারাদেশের দিন ও রাতের তাপমাত্রা আরও কিছুটা হ্রাস পেতে পারে। পরবর্তী ৪৮ ঘণ্টায় বৃষ্টি-বজ্রবৃষ্টির প্রবণতা বৃদ্ধি পেতে পারে। এ সময়ে তাপমাত্রা হ্রাসের সম্ভাবনা রয়েছে।

আন্তর্জাতিক আবহাওয়া পর্যবেক্ষণকারী স্যাটেলাইট সংস্থাসমূহ এবং আবহাওয়া বিভাগের পূর্বাভাসে জানা যায়, চলতি মে মাসের শুরু থেকে বাংলাদেশ এবং আশপাশ অঞ্চলে মেঘ বৃষ্টির আবহ তৈরি হতে পারে। গরম বাতাস কেটে গিয়ে বায়ুপ্রবাহে তথা আবহাওয়ায় পরিবর্তন আসতে পারে।খরা পরিস্থিতিতে গত চার মাসে সারাদেশে স্বাভাবিকের চেয়ে গড়ে ৯৪ শতাংশই কম বৃষ্টিপাত হয়েছে।

হালদায় মা-মাছের ডিম ছাড়ার প্রস্তুতি
এশিয়ায় মিঠাপানির রুই কাতলা মৃগেল (কার্প) জাতীয় মাছের প্রাকৃতিক প্রজনন ও বিচরণ ক্ষেত্র ‘মাছের ব্যাংক’ খ্যাত বঙ্গবন্ধু মৎস্য হেরিটেজ ঘোষিত হালদা নদীতে মা-মাছের আনাগোনা আরও বৃদ্ধি পেয়েছে। বজ্রসহ বৃষ্টিপাতের ফলে শিগগিরই মা মাছের ডিম ছাড়ার দেখা দিয়েছে। মৌসুমের এই সময়ে বজ্রবৃষ্টি এবং হালদার পাহাড়ি উজান থেকে আসা ঘোলা পানির স্রোতে রুই কাতলা মৃগেল মা মাছেরা ভেসে ওঠে, দলে দলে ডিম ছাড়ে। অভিজ্ঞ জেলেরা বিশেষ পদ্ধতিতে নৌকার সাহায্যে ডিম সংগ্রহের উদ্দেশ্যে গত কয়েক সপ্তাহ ধরে হালদার উভয় তীরে প্রস্তুত হয়েই অপেক্ষা করছেন।

সাধারণত অমাবস্যা অথবা পূর্ণিমার ‘জো’র সময় হালদায় মা-মাছেরা ডিম ছাড়ে। আবহমান কাল থেকেই পুরো ব্যাপারটা প্রকৃতির আপন নিয়মেই হয়ে আসছে। চোরা শিকারিদের হাত থেকে মা মাছ সুরক্ষার জন্য হালদা তীরে সিসিটিভি ক্যামেরা বসানো হয়েছে। পাহারায় আছে নৌ পুলিশ। তা সত্বেও চোরা শিকারিদল এবং হালদা নদীর বুকে বালু ও মাটি খেকোরা এখানে সেখানে প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে তৎপর এখনও।